item:
  • sowdamonir@gmail.com
  • Mirpur -12, Dhaka Bangladesh
All Categories

প্রচলিত ধারণাঃ 

প্রচলিত ধারণা হচ্ছে, বিদ্যমান শিল্প বাণিজ্যের অধিকারীরাই মালিক। অবশিষ্টরা শিক্ষিত-অশিক্ষিত, ধনী,গরীব নির্বিশেষে উক্ত মালিকদের অধীনে কোনো না কোনভাবে চাকুরির প্রত্যাশী হয়ে সোনার হরিণের মতো খুঁজে বেড়াবে ।

যারা পাবে তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলে সময় বিক্রির মহারোহে রূটিন মাফিক আসবে যাবে, কর্মতালিকা সম্পাদন ও উদগীরণ করবে।

মাস শেষে বেতন ভাতা গ্রহণ করে নিজেকে একজন সফল কর্মচারি ভেবে মোটামোটি নিশ্চিত জীবন যাপনের একটা আয়োজন সম্পন্ন করবে।এভাবেই তো চলছে।

আর ভোক্তা সাধারণ পণ্য মূল্যের বোঝা ও নিম্নমানের পণ্য ভোগের যাতনা মুখ বুজে সহ্য করবে। এটাই আমাদের সমাজ বাস্তবতার ধারণা ।

আমাদের ভাবনাঃ

আর আমরা ভাবছি একটু ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে । প্রতিটি মানব শিশু অফুরন্ত সম্ভাবনা নিয়ে এ পৃথিবীতে আগমন করে। সময় ও সুযোগের সদ্ব্যবহার করে তাকে যত্ন ও প্রয়াসের মাধ্যমে একটু আত্মনির্ভরশীল উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করে দেয়া গেলে নিজ নিজ অবস্থান থেকে প্রতিটি মানুষ প্রতিষ্ঠিত হয়ে আত্মবিশ্বাসের জায়গা থেকে সমাজের আগামীর দিনগুলোর জন্য একটা ভিত হিসেবে দাঁড়িয়ে যেতে পারে। সওদা ডট কো লিঃ মানব সম্পদের সম্ভাবনার এ দিকটিকে সামনে রেখেই পথ চলা শুরু করেছে

আমরা কী চাই ?

কেন চাই ?

কীভাবে চাই ?

 

ক. আমরা কী চাই ?

আমরা চাই প্রতিটি কর্মক্ষম মানুষের কর্মের সুযোগ সৃষ্টি করতে।

যারা অক্ষম তাদের সক্ষমতা দিতে, যারা অদক্ষ তাদের দক্ষতা বাড়াতে ।যাদের কাজের সন্ধান জানা নেই তাদের কাজের সন্ধান দিতে। সর্বোপরি রাষ্ট, প্রশাসন ও সরকারের হাত ধরে সমাজকে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি দিতে।

 

খ. কেন চাই ?

বাংলাদেশ আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি। বিশ্বের জনসম্পদ বহুল সম্ভাবনাময় একটি দেশ। ধরিত্রী তাঁর মানবসম্পদ নামক প্রাচুর্য্যে আমাদেরকে কানায় কানায় ভরে দিয়েছে। ভিশন ২০২১ এর স্বপ্নকে কাজে লাগিয়ে প্রিয় স্বদেশকে বিশ্বের বুকে এক আত্মবিশ্বাসী জাতি হিসেবে গড়ে তোলার উদ্দেশ্যেই আমরা সবকটি হাতকে কর্মের হাতে পরিণত করার শ্লোগান বাস্তবায়নে সফল অংশীদার হতে চাই ।

 

গ. কীভাবে চাই ?

দৃঢ় মনোবল ও আত্মবিশ্বাসের অবস্থান থেকে কঠিন শপথ নিয়ে একদল উদীয়মান উদ্যোক্তা ঐক্যবদ্ধভাবে নিজ নিজ পেশাগত দক্ষতা ও কর্মসূচি নিয়ে দৃঢ় পদক্ষেপে এগিয়ে যাবে ।

Set Up, Team Building, Group গঠন, চাহিদাপত্র তৈরি, সুলভমূল্যে পণ্য সরবরাহ, বিভিন্ন সার্ভিস-সেবা নিশ্চিতকরণ সহ মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় যাবতীয় বৈষয়িক ক্ষেত্রে আমাদের প্রাত্যহিক সহযোগিতার হাত থাকবে অবারিত।

 

প্রচলিত সনাতন বা ট্রেডিশনাল মার্কেটিং পদ্ধতিতে ভোক্তাকে যেভাবে শোষণ করা হয় তার বিপরীতে আমরা নিয়েছি এক অনুপম পদ্ধতি। আমার পছন্দের পণ্য আমি ব্যবহার করব, তার মধ্যে মধ্যস্বত্ব ভোগী, মজুদদার, আড়তদার বা দালালদের কমিশনের বোঝা সইব না। সওদা ডট কো কনজ্যুমার এসোসিয়েশন বিষয়টি নিশ্চিত করবে । এক্ষেত্রে সচেতন হয়ে কাজ করার দীপ্ত শপথ গ্রহণ করা সময়ের দাবি।

তাই আসুন নিজ নিজ যোগ্যতা ও অবস্থান কাজে লাগিয়ে সওদা ডট কো যোগদান করি। সফল ও সমৃদ্ধ জীবন যাপনে উদ্যোগী হই।

 

                                                “কর্মই জীবন, ব্যস্ততাই সুখ”

 

কনজ্যুমার গ্ররুপ গঠন

কনজ্যুমার : (Noun) ব্যবহারকারী, খরিদ্দার, Consumption অর্থ ভোগ, উপভোগ, ব্যবহার। এই অর্থে ভোক্তা।

পৃথিবীতে মানবজাতি দুটি দুর্বলতা নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছে। (১) ক্ষুধা ও পিপাসা (২) হিংসা।

ক্ষুধা ও পিপাসাঃ শুধু মানুষের নয়, সকল সৃষ্ট জীবের ১নং মৌলিক চাহিদা। এজন্যই বৈষয়িক লোকদের মধ্যে Intellegent ব্যবসায়ীগণ এ জগত নিয়ে বেশি কর্মব্যস্ত থাকতে চান । Consumption এর মূল আইটেম ২ টিঃ

Food (খাদ্য)

Drink (পানীয়)

(১) Food (খাদ্য): ভাত, রুটি, মাছ, মাংস, ডাল, সব্জি, হালুয়া, ফিরনি ইত্যাদি।

(২) Drink (পানীয়): পানি, পিউর ওয়াটার, ড্রিংকিং ওয়াটার, মিনারেল ওয়াটার, সফট ড্রিংক, জুস এ জাতীয় ড্রিংক ইত্যাদি ।

মানুষের মৌলিক ১নং চাহিদা মেটানোর কাজকে রিয়েল প্রফেশন হিসাবে গ্রহণ করা কেমন অপশন? পৃথিবীতে এর চেয়ে শ্রেষ্ঠ কাজ আর হতে পারে না।

বিশুদ্ধ মনে উন্নত জীবনের প্রত্যাশায় এ কাজ করলে এটি নিঃসন্দেহে একটি সর্বশ্রেষ্ঠ কাজ ।

 

                                            ক্ষুধামুক্ত পৃথিবীঃ একটি স্বপ্ন

 

 এ স্বপ্নের বাস্তবায়ন প্রকৃত মানুষ যারা তাদেরকে পরম আনন্দ দান করে।

“ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময় পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি”

সম্পদ সীমিত কিন্তু সমস্যা অসীম, অতএব সমাধান করতে হবে সর্বশ্রেষ্ঠ কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে।

 

 

সওদা এর টার্গেটঃ

খাদ্য দ্রব্যের মূল্য ভোক্তার ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে নিয়ে আসা এবং নিজেরাও সার্ভাইভ করা । এজন্য প্রয়োজন ভোক্তা সংগঠন ও ঐক্য।

 

কনজ্যুমার গ্ররুপ গঠন (ভোক্তার সংগঠন তৈরী) একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

কেন ?

► ব্যবসায়ীদের সমিতি/সংঘ আছে।

► ম্যানুফ্যাকচারারদের এসোসিয়েশন আছে।

► কৃষকদের মাঝেও ঐক্য আছে।

কিন্তু ভোক্তাদের কোন ঐক্য নেই।

 

ফলেঃ

উৎপাদিত ভোগ্য পণ্যের অযৌক্তিক মূল্য বৃদ্ধি ঠেকানোর জন্য রাষ্ট্র বা সরকারের দিকে ভিক্ষুকের মত হাত পেতে বসে থাকা ছাড়া ভোক্তার আর কোন উপায় থাকে না।

অথচঃ

► ভোক্তা যদি ঐক্যবদ্ধ হয়

► সোর্সিং তৈরী করে।

► নিজস্ব Supply Chain তৈরী করে।

► নিজেদের মধ্যে মূল্য সৃষ্টির অবস্থান তৈরী করে।

► তাহলে ভোক্তার নির্ধারিত মূল্যই হবে পণ্যের ন্যায্য মূল্য।

 

সুতরাং আসুন

ভোক্তা সংঘ/কনজ্যুমার গ্রুপ গঠন করি।

নেতৃত্ব দেবে সওদা ডট কো লিঃ

 

মনোনীত নেতাঃ

Community Project Assistant (CPA)

 

Shopping Cart

# Item Qty. Remove